slideshow 1 slideshow 2 slideshow 3

You are here

কবিতা

ভয়ে ভয়ে আছি

মনে খুব ইচ্ছা, আরও ক’টা দিন বাঁচি
তাই ভয়ে ভয়ে আছি

বলেছেন দাদারা, জ্ঞানী এন্ড গাধারা
খেটে খাও, কথা কম, একা চল হরদম
পেয়ে গেছি বুদ্ধি, তাই মনে মনে নাচি
আমি ভয়ে ভয়ে আছি

তেলাপোকা খামচায়
লালচোখে আম চায়
খুব বেশি রাগ হলে চুপচাপ হাঁচি
এত ভয়ে ভয়ে আছি

লিখব না ফেসবুক
ডরে বুক ধুকপুক
ব্লগ তো চিনিই না, আমি আস্তিক, চাচি
দেখ, ভয়ে ভয়ে আছি

কোপালে চাপাতি-ছুড়ি
দিব লেপ-কাঁথা মুড়ি
বদল চাইলে খুব, চুল-দাড়ি চাঁছি
খুব ভয়ে ভয়ে আছি

সবুজ মুখের শিশুরা কখনও সচিবালয়ে যায় না

সবুজ মুখের শিশুরা কখনও সচিবালয়ে যায় না
শিশুদের ভেতরের সবুজতা মরে গেলে পরে তারা বড় হয়
আর শেষ সবুজের ছোঁয়াটুকু তারা সচিবালয়ে গিয়ে হারায়
সচিবালয়ে শুধু শাড়ি পরা, প্যান্ট পরা নানা দেহ ঘোরে
তাহাদের নাক আছে, চোখ আছে, মুখ আছে, বুক আছে
হৃদয়ে চঞ্চল ঘাসের সুবাতাস নেই

তাই সবুজ মুখের শিশুরা কখনও সচিবালয়ে যায় না

অস্তমান

এখন এই মধ্যকার্তিকে-
আরক্ত সূর্য নামছে হলুদ ধানক্ষেতের ওইপারে।
 
দিগন্তের অন্ধকারে রক্তপিপাসু তান্ত্রিকের, সবটুকু হেমরস
শুষে নেয়া নিমিলিত চোখ, উন্মগ্ন এখন।
ফিনফিনে কুয়াশায় ছোপছোপ মাঠ- আধকাটা ফসল 
যেন হাই তুলছে দৈনন্দিন ঘুমের আগে মুড়ি দেয়া 
কাঁথার ভেতর আলস্যে ও পরম শান্তিতে।
দড়ির মত দিগন্তে ছুটে যাওয়া মেঠোপথ,
পাশেই সেই পুরাকালের নদী পেটফোলা সাপের মত, 
আকাশে রক্তিম মেঘ, তার জলছবি
বুকে নিয়ে আন্দোলনহীন, স্থির-

গাইবান্ধা : ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

একলা, ঝরে মরতেছিল, বক
প্রসঙ্গ নয় ফকিরের কেরামত
বকের তো নেই বাপ-মা অথবা বোন
তবে কেন ছবিতে শোকের টোন?

আর সব থাক, নাকফুলটা ভাবি
ওটাই ছিল মন ভোলানোর চাবি
মুখটা গেছে, আগুনজ্বলা বোম
‘নাকফুল’ দেখি ডিএমসি’র ডোম
ঘাম মুছে কয়। আহারে নাকফুল
বেঁচে আছ তবু এই আকালের দিনে
আমার পাগলী জান ছিল যে বউ
অন্ধবোমা রাস্তায় নিল চিনে

একলা গেলি, নাকফুলটা রেখে
তোর কয়লা গোর দেব না আমি
জমতে জমতে পাহাড় যদি হয়
ছুঁয়ে যাবে মেঘ, জানবে আগামী

মানুষ তো আর বক নয় স্মৃতিহীন
ধুয়ে যাবে সব সময়-বন্যায়
বকব্যাথীরা যত কায়দাই কর
দাগ থেকে যাবে পোড়া গাইবান্ধায়

স্মৃতির পাতা থেকে…

 

জীবনের নিঃসঙ্গ বন্ধুর পথ চলতে চলতে
আকস্মিক তার সাথে দেখা।
অজানা, অচেনা
তবু যেন কত পরিচিত,
যুগ জন্মান্তরের চেনা।
ভাবি এই বুঝি আমার ঠিকানা,
এখানেই বুঝি পথচলা শেষ।
এখানেই বুঝি ভালবাসার ছায়ায় বিশ্রাম
অবিরাম বিশ্রাম।

ত্রয়ী গীতিকবিতা ।। শফিকুল ইসলাম

tear shed
গীতিকবিতা-(০১)

সেদিনের সেই তুমি কত বদলে গেছ
আমার পৃথিবী আজও তেমনি আছে,
যেমন দেখেছ॥

কোথায় সেই সুর, সেই গান
প্রাণে প্রাণে এত মান অভিমান,
মনে হয় যেন তুমি আজ
সবই ভুলে গেছ॥

কবি শফিকুল রচিত একটি গণসঙ্গীত


[শোষণ-বঞ্চনা-বৈষম্যের বিরুদ্ধে জনতার সংগ্রাম চলছে, চলবে । কখনো প্রকাশ্যে কখনো অলক্ষ্যে  । কখনো তীব্র কখনো মন্থর গতিতে । থেমে গেলে চলবে না । এগিয়ে যেতে হবে। মনে রাখতে হবে বিপ্লবীর মৃত্যু আছে, বিপ্লবের মৃত্যু নেই । মানুষের মুক্তির অন্তর্নিহিত আকাংখা বিপ্লবকে চিরজীবি করে রাখবে। ]

সম্মুখে বাধা আছে, পথ বন্ধুর
তবু জানি যেতে হবে বহুদূর…॥

পায়ে ফুটুক যতই কাটা
থামলে চলবেনা এ পথ হাটা
সীমিত সময়,পথ অনেক দূর…॥

"পথ যত হোক বন্ধুর,বন্ধু যেওনা থামি"/শফিকুল ইসলাম


[সারাবিশ্বে প্রকাশ্যে কিংবা লোকচক্ষুর অন্তরালে যারা আজ ও জনতার মুক্তি সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে চলেছেন, সেইসব অমিত আশাবাদী অসমসাহসী সংগ্রামী মানুষদের উদ্দেশ্যে নিবেদিত]

পথ যত হোক বন্ধুর ,বন্ধু যেওনা থামি
আসবেই আসবে সুন্দর আগামী।।

আধার দেখে চমকে উঠনা ত্রাসে
আধার রাতের শেষে সূর্য হাসে-
আজ মাভৈ বানী শোনাই তোমায় আমি।

“স্মৃতি তুমি বেদনা…

জরায়ুর অন্ধকার

আমি তোমার প্রতি বোধ করছি একমুঠো তীব্র আবেদন
তোমার নিকষ ঠোটের স্বচ্ছ মুগ্ধতায় নয়-
তোমার অভ্যন্তর বিকাশমানতার-
তোমার প্রসব বেদনার, তোমার সৃষ্টি যন্ত্রণার।

জন্মান্তরের ঘুম

উৎসর্গঃ জীবনানন্দ দাশ

 

প্রিয়ার পোর্ট্রেট !

জান ও জানগো তোমার কেশে এত মিষ্টি গন্ধ কেন?
তোমার ব্যবহৃত মেকআপ আর পারফিউমের স্মেল যেন
আমার শরীরের প্রতিটি অঙ্গকে ফিসফিসিয়ে কি যেন বলে
তোমার উত্তপ্ত-তাময় অঙ্গরা আমায় খুব কাছে টানায় ব্যাকুল হয়ে
কয়, আমার প্রতিটি অঙ্গের নগ্ন ছবি ভেসে উঠবে তোমার চোখে।
প্লিজ পাখিটি তুমি আমার চোখের সামনে নগ্ন হয়ে বসো
পেনসিলের যৌনতায় চিত্রিত হোক তোমার নগ্নতা
আহ! কি অনুভব! আহ কি ভালোবাসার মায়া!
এই জান একটু আমার দিকে তাকিয়ে উষ্ণ অধরের
ক্ষুধাতুর ভাবে আমার চোখে চোখ রাখো......
মাই সুইট হার্ট, প্লিজ গিভ মি এ সুইট মোমেন্ট
আই ওয়ান্ট টু ড্র ইউর সেক্সি পোর্ট্রেট ।

চেতনার মালিকানা, শাহবাগ ২০১৩

উৎসর্গ

হাসান আজিজুল হকের 'নামহীন গোত্রহীন', 'ফেরা' এবং আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের 'মিলির হাতে স্টেনগান' গল্প তিনটি-কে


ক্রিয়া


চেতনা বিক্রি করছি পার মিনিট দুই টাকা পঞ্চাশ পয়সায়
চেতনা এইখানেই সবচেয়ে কম রেটে কিনতে পাওয়া যায়

বেয়াল্লিশ বছর ধরে বিক্রি করছি মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে
চেতনা এখন তাই ঘোষণায় নথিপত্রে মিউজিয়ামে থাকে

চেতনার মালিকানা আমাদেরই, চেতনার দখল নিয়েছি
অফ টপিকঃ মাঝে মাঝে শস্তায় দাসখত দিয়েছি

আঁধারের কাছে, তবে প্রকাশ্যে করিনা স্বীকার
সুয়ো রাণী স্বৈরাচার, দুয়ো রাণী রাজাকার আমার !!!

ভালো লোকগুলো (উগো শ্যাভেজের জন্য) : এলিস ওয়াকার

Alice Malsenior Walker (born February 9, 1944) is an American author, poet, feminist, and activist. She has written both fiction and essays about race and gender. She is best known for the critically acclaimed novel The Color Purple (1982) for which she won the National Book Award and the Pulitzer Prize. (from Wikipedia)  

আমরা মানুষরে ভাই!!!

আস্তিকতা বা নাস্তিকতা কিছুই বুঝি না
আমি হিন্দুও না আমি মুসলিমও না
আমি খ্রিস্টান নয় আমি বৌদ্ধও নয় 
আমি মানুষ, আমি মানুষ, মানুষ!
 
আমি মুক্তমনাও নয়, 
আবার সংকীর্ণতাতেও নেই
আমি বাম বা ডান পন্থীও না
আমি শুধুই জনতার দলে, 
আমি জনতার দলে, জনতার দলে। 
আমি মানুষের দলে, মানুষের দলে!
 
আমরা আমার ভাইয়েয়ের রক্তের কথা বলি
আমারা বোনের সম্ভ্রম হারানোর ব্যথা জানি 

Pages